• শনিবার ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম


    আদমদীঘিতে বিধবাভাতার কার্ডটি ফেরত দিতে চান লাজিনা বেওয়া

    নিজস্ব প্রতিনিধি, আদমদীঘি | ০৭ জুন ২০২১ | ৫:৪১ অপরাহ্ণ

    আদমদীঘিতে বিধবাভাতার কার্ডটি ফেরত দিতে চান লাজিনা বেওয়া

    অনেক অসহায় মানুষ যখন ঘুষ দিয়েও বিধবা ভাতার কার্ড পাচ্ছেন না ঠিক তখন বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার লাজিনা বেওয়া নামের এক বিধবা নারী সেই ভাতার কার্ড ফেরত দেয়ার সীদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়নের ধুলাতইর গ্রামের মৃত হাদিস আলীর স্ত্রী। রবিবার সন্ধ্যায় পারিবারিকভাবে এ সীদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে তার ছেলে মামুনুর রশিদ মামুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

    বিধবা লাজিনা বেওয়া কালের কন্ঠকে জানান, ১৯৮২ সালে মাত্র ১০ শতাংশ সম্পত্তি রেখে স্বামী হাদিস আলী মারা যান। মাত্র ২২বছর বয়সে বিধবা হোন তিনি। ছোট দুটি মেয়ে ও ৬ মাস বয়সী ছেলে মামুনুর রশিদ মামুনকে আকড়ে নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। ছেলে-মেয়েকে মানুষের মতো মানুষ করে গড়ে তুলতে ১৯৯৮ সালে বিধবাভাতার তালিকাভুক্ত হন। অনেক কষ্টের মাঝেই মেয়ে দুটিকে বিয়ে দেন। এদিকে ছেলে মামানুর রশিদ মামুন পড়াশোনা শেষ করে সংসারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে ২০১৪ সালে মাত্র তেত্রিশ হাজার টাকার বিনিময়ে সরকারিভাবে (জি টু জি পদ্ধতিতে) মালেয়শিয়ায় পাড়িজমান। দু’বছর পর দেশে ফিরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক পদে চাকরী পান। এতে তার পরিবারে স্বচ্ছলতা ফিরে আসে। তিনি আরো জানান, যখন বিধবাভাতা তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন তখন মনে মনে সীদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ‘যদি কখনো সংসারে স্বচ্ছলতা ফিরে আসে, তাহলে বিধবা ভাতার কার্ডটি ফেরত দিবেন’। আজ তার সেই স্বপ্ন পূরণ হওয়ায় তিনি কার্ডটি ফেরত দিতে চান। কষ্টের দিনে এমন সহযোগিতা পাওয়ায় সরকারের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা জানান।


    ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম জানান, সবাই যখন পেতেই ব্যস্ত তখন তিনি ফেরত দিতে চান। এটি সত্যিই আশ্চর্যজনক ঘটনা। এ ইউনিয়নে আগে এভাবে কেউ কার্ড ফেরত দেয়নি। সন্ধ্যায় সীদ্ধান্ত নিয়ে ওই নারীর ছেলে মামানুর রশিদ মামুন বিষয়টি মুঠোফোনে আমাকে নিশ্চিত করেন।

    উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শরিফ উদ্দীন মুঠোফোনে জানান, দেশে এমন মানুষ বিরল। এ উপজেলায় এমন ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি। বিধবা ওই নারীর এমন সীদ্ধান্ত খুব ভালো লেগেছে। তার হিসাব বন্ধের জন্য আবেদন চাওয়া হয়েছে। আবেদন পেলে ওই হিসেব বন্ধ করে দেয়া হবে। তবে এখান থেকে শিক্ষা নেয়া উচিৎ ‘প্রয়োজন ছাড়া কোনো কিছু নেয়া ঠিক নয়।


    Facebook Comments Box


    বাংলাদেশ সময়: ৫:৪১ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০৭ জুন ২০২১

    seradesh.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০ 
    advertisement

    সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : সাদেকুল ইসলাম | সম্পাদক : আবু সাঈদ

    ঢাকা অফিসঃ বাড়ি #৫ (১ম তলা) রোড #০ কল্যাণপুর, ঢাকা-১২০৭, অফিস ঢাকা রোড সান্তাহার ৫৮৯১
    ফোন : 01767 938324 (মফস্বল) 01830 359796 (সম্পাদক) | E-mail : seradeshmoff@gmail.com, news@seradesh.com

    ©- 2021 seradesh.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

    %d bloggers like this: