• শুক্রবার ১৬ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম


    সবকিছুই উন্মুক্ত দেখা মিলছেনা জনসচেতনতা

    অরিন্দম মাহমুদ, ধামইরহাট (নওগাঁ) | ০৭ এপ্রিল ২০২১ | ৪:০৭ অপরাহ্ণ

    সবকিছুই উন্মুক্ত দেখা মিলছেনা জনসচেতনতা

    হঠাত করেই করোনা সংক্রমন বৃদ্ধি পাওয়ায় সারা দেশে লক ডাউনের ঘোষনা দিয়েছে সরকার। মাইকিং এর মাধ্যমে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জনগণকে সচেতন করতে প্রচার প্রচারনা চালালেও সত্যিকার অর্থে দেখা মিলছেনা জনসচেতনতা। অথচ বিশেষজ্ঞরা বারংবার বলছেন করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি রোধে জনসচেতনতা ও নিরাপদ দুরত্বের কোন বিকল্প নেই।

     


    নওগাঁর ধামইরহাটে কাপড়ের দোকান, চার্জার (অটো ভেন) ও চায়ের দোকানে স্বাস্থ্যবিধির কোন তোয়াক্কা না করে জনগণের উপস্থিতিতে আশংকা জনক হারে বাড়ছে উপচে পড়া ভিড়। প্রশাসন ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে জনসাধারণের মাঝে মাস্ক বিতরণসহ সকলকে নিরাপদ দুরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করার কথা বারবার ঘোষণা করা হলেও ধোপে টিকছে না তার গুরুত্ব।

    সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে লকডাউনের তৃতীয় দিনেও উপজেলার মঙ্গলবাড়ি বাজার, হরিতকি ডাঙ্গা, রাঙ্গামাটি বাজার, উপজেলার পুর্ব বাজার থেকে আমইতাড়া বাজার পর্যন্ত রাস্তায় কোন বাস চলাচল না করলেও মটোরসাইকেল, অটো ভেন গাড়ি, চায়ের দোকান, খাবার হোটেল, কাপড়ের দোকানে জনসমাগমের কমতিনেই। সাধারণ মানুষ রাস্তায় নিরাপদ দুরত্ব বজায় না রেখে দল বেধে একাধিক মানুষকে মাস্ক ছাড়ায় ঘুরাফেরা করতে দেখা গেছে।


    শুধু তাই নয়, কেউ কেউ মুখের নিচে, পকেটে আবার অনেকেই কানের উপরে মাস্ক ঝুলিয়ে রেখে চলাফেরা করতে দেখা গেছে।

    করোনার তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানা গেছে, জানুয়ারী থেকে এ পর্যন্ত সাধারণ রুগীর শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে মাত্র ৬ জন। তার মধ্যে ৫ জন সুস্থ্য হয়ে ঘরে ফিরেছেন। এর মধ্যে জামাইয়ের বাড়ি বেড়াতে এসে পত্নীতলা যদুবাটি গ্রামের একজনের শরীরে ৩১ মার্চ করোনা ধরা পরলে তাকে দশ দিন যাবত হোম আইশোলেশনে রাখা হয়েছে।


    এছাড়াও জানা গেছে অনলাইনের মাধ্যমে প্রথম ধাপে টিকাদান কর্মসূচির আওতায় এ পর্যন্ত রেজিষ্ট্রেশন করেছেন ৮ হাজার ৫শ ৮৯ জন। এদের মধ্যে ৭ হাজার ৪শ ৩৫ জন ব্যাক্তি করোনার টিকা গ্রহণ করেছেন। যারা প্রথম ধাপে টিকা নিয়েছেন তাদের সবায়কে ম্যাসেজ প্রদানের মাধ্যমে ৮ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় ধাপে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করা হবে।

    উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. স্বপন কুমার বিশ্বাস জানান, আমাদের তরফ থেকে যতটুকু করার আমরা চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি। সম্প্রতি আমরা করোনা প্রতিরোধ মিটিং করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে আমাদের উপর যেসব দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে তা বাস্ত বায়নের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। জনগণ স্বাস্থ্যবিধির উপর সচেতন না হলে আমাদের কাজ করা অনেকটা কষ্ট সাধ্য হয়ে পরবে।

    উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্ত গনপতি রায় বলেন, জনগণকে সচেতন করতে আমরা বেশ কিছু কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। পুলিশ প্রশাসনকে সাথে নিয়ে মাস্ক বিতরণসহ জনগণকে সচেতন করতে প্রতিদিন মাইকিং করা হচ্ছে।

     

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৪:০৭ অপরাহ্ণ | বুধবার, ০৭ এপ্রিল ২০২১

    seradesh.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    advertisement

    সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : সাদেকুল ইসলাম | সম্পাদক : আবু সাঈদ

    ঢাকা অফিসঃ বাড়ি #৫ (১ম তলা) রোড #০ কল্যাণপুর, ঢাকা-১২০৭, অফিস ঢাকা রোড সান্তাহার ৫৮৯১
    ফোন : 01767 938324 (মফস্বল) 01830 359796 (সম্পাদক) | E-mail : seradeshmoff@gmail.com, news@seradesh.com

    ©- 2021 seradesh.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।